1. admin@nagorikexpress.com : নাগরিক এক্সপ্রেস : Nagorik Express প্রশাসন
  2. rd278591@gmail.com : Rahul Rahulrd : Rahul Rahulrd
শনিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ০৬:৫১ অপরাহ্ন
নোটিশ :
নাগরিক এক্সপ্রেস পত্রিকার সাংবাদিক হিসাবে কাজ করতে হলে আজই আমাদের অনলাইন পেইজে অথবা ই-মেইল নাম্বারে অথবা আমাদের মোবাইল নাম্বারে যোগাযোগ করুন প্রতিটি জেলার শহরে সাংবাদিক নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে।   নাগরিক এক্সপ্রেস এর বিভিন্ন জেলার সাংবাদিকদের নাম এবং পদবী। নাম: তানজির আহম্মেদ সানি রিপোর্টার: ঢাকা জেলা নাম: নোমান খান রিপোর্টার: মোহাম্মদপুর ঢাকা। নাম: ইসমাইল হোসেন রিপোর্টার:রাজশাহী জেলা নাম : মেজবাহ উদ্দিন রিফাত রিপোর্টার : মোহাম্মদপুর ঢাকা মোঃ জাহাঙ্গীর রাজীব রাজু রিপোর্টার - ভেড়ামারা, কুষ্টিয়া। নাম: প্রান্ত মৃধা রিপোর্টার: নরসিংদী নামঃসাকিব হাসান প্রিয়াস প্রতিনিধিঃ কৃষি ইনস্টিটিউট, ব্রাহ্মণবাড়িয়া মকবুল হোসেন প্রতিনিধিঃ মিঠামইন,কিশোরগঞ্জ নাম : খালিদ সাইফুল চঞ্চল রিপোর্টার : কুষ্টিয়া জেলা নাম: এইচ এম জুয়েল রিপোর্টার: মাগুরা সদর মাগুরা জেলা নাম: আজাদ নাদভী রিপোর্টার: মুন্সিগঞ্জ জেলা নাম: ইসমাইল হোসেন রিপোর্টার:রাজশাহী জেলা নাম:মোঃইনজামামুল হক জুয়েল রিপোর্টার:সাতক্ষীরা জেলা নামঃ ফৌজি হাসান খান রিকু রিপোর্টারঃ লৌহজং উপজেলা নামঃ মুশফাকুর রহমান সিলেট জেলা প্রতিনিধি নামঃইমতিয়াজ উদ্দিন কক্সবাজার জেলা প্রতিনিধি    

ডাক্তারের আত্মহনন বিচার নাহলে,আমি আর কোন রোগী দেখবো না, এদেশে সবচেয়ে বড় পাপ ক্ষমতাশালী না হওয়া

  • আপডেট সময় : বুধবার, ১৫ এপ্রিল, ২০২০
  • ৩০৯ সময় দেখা

 

রিপোর্টারঃ আয়েশা পাটোয়ারী

আমি ৩৯ বিসিএস এ নিয়োগপ্রাপ্ত একজন মেডিকেল অফিসার । উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স দিরাই , সুনামগঞ্জ এ কর্মরত। আজকে সকালে ইমার্জেন্সিতে ডিউটিতে থাকাকালীন সকাল ৬.২০-৬.৩০ র দিকে রাজিব নামে একজন এসে বলল , তার সাথে বাসায় যেতে হবে উপজেলা চেয়ারম্যান অসুস্থ।সে উপজেলা চেয়ারম্যানের ভাগিনা৷ আমি বললাম , আমি ইমার্জেন্সিতে ডিউটিতে, বাসায় যেতে পারব না৷ ইমারজেন্সি খালি রেখে যাওয়া যাবে না৷ উনাদের UHFPO স্যারের সাথে যোগাযোগ করতে বললাম।যদি না যাবেন তো রাস্তায় নিয়ে পিটাবো।

ইমারজেন্সি চেয়ার লাথি দিয়ে ফেলে দিল একজন

 

আরেকজন ম’সজিদের দান বাক্স টেবিলে বাড়ি দিয়ে বলল

এটা আমার মাথায় মা’রবে পরেরবার
এরকম করে ১৫-২০ মিনিট গালিগালাজ করার পর UHFPO স্যার সহ আমার কলিগরা আসে। এই তিনজন তাদেরকেও গালিগালাজ করে৷
তারপর UHFPO স্যার এদের সাথে একজন ডাক্তারকে বাসায় পাঠিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেন৷
এখন কথা হল, আমি ইমারজেন্সি ছেড়ে যেতে পারতাম, কিন্তু তখন যদি একজন শ্বাসকষ্টের রোগী আসতেন,তখন ইমারজেন্সিতে কে রোগী দেখত ? চেয়ারম্যান সাহেবের ভাই, ছেলে আর ভাগিনা???আমি যাইনি, তাই উনারা হুমকি দিয়েছেন৷
এই ম’হামারীর সময়ে আমরা একটু ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছি, এর মাঝে এই রকম হুমকি,গালাগালি শুনলে আর কাজ করতে ইচ্ছে করে না৷
তখন মনে হয়- এদেশে সবচেয়ে বড় পাপ ক্ষমতাশালী না হওয়া,দ্বিতীয় পাপ ডাক্তার হওয়া৷
তবে এর কোন বিচার নাহলে, আমি আর কোন রোগী দেখব না৷ It’s loud and clear.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ধরনের আরো সংবাদ
© নাগরিক এক্সপ্রেস । সর্বসত্ব সংরক্ষিত। নাগরিক এক্সপ্রেস এর প্রকাশিত প্রচলিত কোনো সংবাদ তথ্য ছবি আলোকচিত্র রেখা চিত্র ভিডিও চিত্র অডিও কনটেস্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামত এর জন্য কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ণ লেখক এর
Theme Customized By Theme Park BD