1. admin@nagorikexpress.com : নাগরিক এক্সপ্রেস : Nagorik Express প্রশাসন
বুধবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:৩৮ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
শেখ রাসেল পরিষদ এর নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক হলেন আল-মামুনুর রশিদ। লৌহজংয়ে নৌকা প্রতীক থেকে বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় চার চেয়ারম্যান নির্বাচিত লৌহজংয়ে যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা ফজলুল হক মণির ৮৩ তম জন্মবার্ষিকী পালিত যশোরে শেখ মণির জন্মদিনে দোয়া-মিলাদ অনুষ্ঠিত জাতীয় এসএমই পণ্য মেলা-২০২১  উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মতলবে পুস্তক প্রকাশক বিক্রেতা সমিতির বর্ধিত সভা লৌহজংয়ে নৌকার প্রার্থীর সমর্থকদের হামলায় স্বতন্ত্রপ্রার্থীর ছেলে আহত মতলবে তিন কেজি গাঁজাসহ দুই যুবক আটক মতলব মুক্ত দিবস পালিত ৫ম ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের পুনঃ তফসিল প্রসঙ্গে।

পাঁচবিবিতে করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবেলায় মানবিক সহায়তা (জি.আর) ফান্ডের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

  • আপডেট সময় : সোমবার, ২০ এপ্রিল, ২০২০
  • ৭৮ সময় দেখা

পাঁচবিবিতে করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবেলায়
মানবিক সহায়তা (জি.আর) ফান্ডের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

পাঁচবিবি (জয়পুরহাট) প্রতিনিধি ঃ
জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবেলায় মানবিক সহায়তা (জি.আর) ফান্ড থেকে কুসুম্বা ইউনিয়নের জন্য বরাদ্দের টাকা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয়ের অফিস সহকারী সবুজ হোসেন কর্তৃক আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া গেছে। আজ সোমবার কুসুম্বা ইউপি চেয়ারম্যান মুক্তার হোসেন মন্ডল সাংবাদিকদের বলেন, জি.আর ফান্ডের আওতায় গত ১১ ও ১২ এপ্রিল ২ ধাপে ইউনিয়নের জন্য বরাদ্দের ৩১ হাজার টাকা গ্রহণ করার জন্য প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয়ে গত ১৭ এপ্রিল গেলে অফিস সহকারী সবুজ হোসেন আমার নিকট থেকে ফাঁকা রেজিষ্টার খাতায় স্বাক্ষর নিয়ে প্রথমে ২৬ হাজার টাকা নগদ বুঝে দেন। এ সময় টাকার পরিমাণ বিষয়ে বার বার জিজ্ঞাসা করলে তিনি আরো ৫’শ টাকা ড্রয়ার থেকে বের করে আমাকে দেন। গত ১৮ এপ্রিল ইউনিয়নের তদারককারী কর্মকর্তা উপজেলা “আমার বাড়ি-আমার খামার” এর ম্যানেজার এর নিকট জানতে পারি কুসুম্বা ইউনিয়নের জন্য বরাদ্দ ছিল ৩১ হাজার টাকা। তাৎক্ষণিক বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন স্থানে বিষয়টি জানালে সন্ধ্যায় উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ওবায়দুর রহমানের মাধ্যমে আরো ৪ হাজার ৫’শ টাকা পাঠিয়ে দেন। তিনি আমাকে টাকা দিয়ে টাকা বুঝিয়া পাইলাম মর্মে একটি প্রত্যয়ন পত্র লিখে নেন। ইউপি চেয়ারম্যান আরো বলেন, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে এই ধরনের অনেক সমস্যায় করা হয়ে থাকে। অভিযোগের বিষয়ে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয়ের অফিস সহকারী সবুজ হোসেনের সঙ্গে কথা বললে তিনি বলেন, অবশিষ্ট ৪ হাজার ৫’শ টাকা টাকা আমি পাঠিয়ে দেয়নি, ম্যাডাম দিয়েছেন। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা নূর-এ-শেফার সঙ্গে কথা বলতে অফিসে গিয়ে দেখা না পেয়ে মোবাইল ফোনে কথা বললে তিনি বলেন, সরকারী টাকা কম গিয়েছিল, তাই তাকে টাকা দিয়ে একটি লিখিত নেওয়া হয়েছে, কোন প্রত্যয়ন নেওয়া হয়নি। উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ওবায়দুর রহমানের সঙ্গে কথা বললে তিনি বলেন, আমি মনিটরিং এর দােিয়ত্ব আছি, ভুল বোঝাবুঝি হয়েছিল। গতকাল তা সমাধান করে দেওয়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ধরনের আরো সংবাদ
© নাগরিক এক্সপ্রেস । সর্বসত্ব সংরক্ষিত। নাগরিক এক্সপ্রেস এর প্রকাশিত প্রচলিত কোনো সংবাদ তথ্য ছবি আলোকচিত্র রেখা চিত্র ভিডিও চিত্র অডিও কনটেস্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামত এর জন্য কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ণ লেখক এর
Theme Customized By Theme Park BD
error: Content is protected !!