1. admin@nagorikexpress.com : নাগরিক এক্সপ্রেস : Nagorik Express প্রশাসন
  2. rd278591@gmail.com : Rahul Rahulrd : Rahul Rahulrd
মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২, ০২:১৩ অপরাহ্ন
নোটিশ :
নাগরিক এক্সপ্রেস পত্রিকার সাংবাদিক হিসাবে কাজ করতে হলে আজই আমাদের অনলাইন পেইজে অথবা ই-মেইল নাম্বারে অথবা আমাদের মোবাইল নাম্বারে যোগাযোগ করুন প্রতিটি জেলার শহরে সাংবাদিক নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে।   নাগরিক এক্সপ্রেস এর বিভিন্ন জেলার সাংবাদিকদের নাম এবং পদবী। নাম: তানজির আহম্মেদ সানি রিপোর্টার: ঢাকা জেলা নাম: নোমান খান রিপোর্টার: মোহাম্মদপুর ঢাকা। নাম: ইসমাইল হোসেন রিপোর্টার:রাজশাহী জেলা নাম : মেজবাহ উদ্দিন রিফাত রিপোর্টার : মোহাম্মদপুর ঢাকা মোঃ জাহাঙ্গীর রাজীব রাজু রিপোর্টার - ভেড়ামারা, কুষ্টিয়া। নাম: প্রান্ত মৃধা রিপোর্টার: নরসিংদী নামঃসাকিব হাসান প্রিয়াস প্রতিনিধিঃ কৃষি ইনস্টিটিউট, ব্রাহ্মণবাড়িয়া মকবুল হোসেন প্রতিনিধিঃ মিঠামইন,কিশোরগঞ্জ নাম : খালিদ সাইফুল চঞ্চল রিপোর্টার : কুষ্টিয়া জেলা নাম: এইচ এম জুয়েল রিপোর্টার: মাগুরা সদর মাগুরা জেলা নাম: আজাদ নাদভী রিপোর্টার: মুন্সিগঞ্জ জেলা নাম: ইসমাইল হোসেন রিপোর্টার:রাজশাহী জেলা নাম:মোঃইনজামামুল হক জুয়েল রিপোর্টার:সাতক্ষীরা জেলা নামঃ ফৌজি হাসান খান রিকু রিপোর্টারঃ লৌহজং উপজেলা নামঃ মুশফাকুর রহমান সিলেট জেলা প্রতিনিধি নামঃইমতিয়াজ উদ্দিন কক্সবাজার জেলা প্রতিনিধি    
শিরোনাম :

শামীমের ‘অটো রেলক্রসিং আ্যান্ড সিকিউরিটি’প্রযুক্তি উদ্ভাবন ;

  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ২০ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ৩৯৪ সময় দেখা

 

সাম্প্রতিক সময়ের রেলদূর্ঘটনা এবং জীবনহানী হৃদয়ে নাড়া দিয়েছিল শিক্ষার্থী শামীম রেজাকে। এরপরই এসব অনাকাঙ্খিত দূর্ঘটনা থেকে প্রানরক্ষায় প্রযুক্তির উদ্ভাবনে নেমে পড়েন তিনি। অবশেষে উদ্ভাবন করেন এক নতুন প্রযুক্তি।
বুধবার নাটোরের বাগাতিপাড়ায় তিনদিন ব্যাপী শুরু হওয়া বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলায় তার উদ্ভাবিত এই নতুন প্রযুক্তি প্রদর্শন করেন। স্থানীয় সাংসদ শহিদুল ইসলাম বকুল এই মেলার উদ্বোধন করেন এবং পরিদর্শনকালে শামীমের প্রযুক্তি দেখে অভিভূত হন।
শিক্ষার্থী শামীম তার এই প্রযুক্তির নাম দিয়েছেন ‘অটোরেল ক্রসিং এন্ড সিকিউরিটি সিস্টেম’। তিনি উপজেলার কাদিরাবাদ ক্যান্টনমেন্ট স্যাপার কলেজের একাদশ শ্রেণীর বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী।
শামীম তার প্রযুক্তির বর্ণনা দিতে গিয়ে বলেন, বর্তমানে দেশে রেলদূর্ঘটনার হার ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। মানুষের বিন্দু মাত্র ভুলের কারণে ঘটছে বড় ধরনের ট্রেন দূর্ঘটনা । সম্প্রতি একটি রেল দূর্ঘটনা ঘটেছে, যার কারণে অনেক মানুষ মারা গেছে।
ওই দূর্ঘটনার বিষয়ে তিনি জেনেছেন, সেখানকার সিকিউরিটি গার্ড রাতে ঘুমিয়ে পড়েছিল, যার কারণে ওই দূর্ঘটনাটি ঘটে এবং অনেক মানুষের প্রাণ হানি ঘটে। এসব দূর্ঘটনা থেকে মানবজীবনকে রক্ষার জন্য তার এ আবিস্কার।
তিনি বলেন, তার উদ্ভাবিত এই ‘অটো রেলক্রসিং এন্ড সিকিউরিটি সিস্টেম’ স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতিতে কাজ করবে। স্টেশন থেকে দুই কিলোমিটার দূরে একটি ইন্ডিগেটর থাকবে। যখন ট্রেন আসবে তখন রেলটি দুই কিলোমিটার দূরে থাকা অবস্থায় একটি সিগন্যাল দিবে এবং সঙ্গে সঙ্গে রেলগেটের ক্রসবারটি নেমে যাবে। ফলে যানবাহান চলাচল বন্ধ হয়ে যাবে।
তার পর যখন ট্রেনটি রেলগেট অতিক্রম করে চলে যাবে, তখন দুই কিলোমিটার যাওয়ার সংকেত পেয়ে ক্রসবারটি পূনরায় উঠে যাবে। এভাবে এটা স্বয়ংক্রিয় ভাবে নিয়ন্ত্রিত হবে। একাজে কোন মানুষের প্রয়োজন হবে না।
এছাড়াও স্টেশনের ল্যাম্পপোষ্ট, লাইট এগুলোকে স্বয়ংক্রিয় ভাবে একটি সার্কিট দিয়ে নিয়ন্ত্রিত থাকবে। যার কারণে লাইটগুলো দিনে জ্বলবে রাতে বন্ধ থাকবে। কোন মানুষকে এগুলো বন্ধ করতে হবে না। এছাড়াও একটি ‘পেলটিএস্টার’ থাকবে যেখানে স্বল্পতাপে প্রচুর পরিমাণ বিদ্যুৎ শক্তি পাওয়া যাবে।
যাতে সৌর প্যানেল বা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে কম খরচে বেশি বিদ্যুৎ পাওয়া যাবে। এই বিদ্যুৎ ব্যাটারিতে সংরক্ষণ করা হবে। আর একটি পাওয়ার আপ সার্কিট অর্থাৎ ‘ডিসি’ কে ‘এসি’ তে স্থানান্তর করে বিদ্যুৎ শক্তিতে রূপান্তর করবে। যা দিয়ে পুরো রেলস্টেশনের প্রয়োজনীয় বিদ্যুৎ পাওয়া সম্ভব হবে।
তিনি আরও বলেন, তার এই প্রজেক্ট বা স্টেশনে কেউ হস্তক্ষেপ করতে পারে বা ক্ষতি করার চেষ্টা করতে পারে। সেকারনে তিনি এইস্টেশনের কন্ট্রোল রুমকে নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য একটি নিরাপত্তা সার্কিট তৈরি করে এই প্রযুক্তিতে যুক্ত করেছেন। কেউ কন্ট্রোল রুমে প্রবেশের চেষ্টা করলে সঙ্গে সঙ্গে নিরাপত্তা এলার্ম বা সংকেত বেজে উঠবে। এলার্ম পেয়ে স্টেশনের নিরাপত্তার পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া যাবে। এভাবেই নিরাপত্তা ব্যবস্থাও সম্পূর্ণ হবে।
শামীম রেজা বলেন, পুরো প্রযুক্তিটি উদ্ভাবনে তাকে তার কলেজের বিজ্ঞানের শিক্ষক আনোয়ারুল আল আযম এবং চার সহপাঠী আমেনা খাতুন, সুমাইয়া আক্তার, অভিজিৎ সাহা ও যুবরাজ কুমার সহযোগিতা করেছেন।
তিনি দাবি করেছেন, এই প্রযুক্তি বাস্তবায়নে খুব বেশি খরচ হবে না। স্বল্প খরচের এই প্রযুক্তিটি তিনি দেশের কল্যাণের জন্য সরকার বা রেলবিভাগকে দিতে চান।
এ বিষয়ে ওই কলেজের বিজ্ঞান বিষয়ের শিক্ষক আনোয়ারুল আল আযম বলেন, শিক্ষার্থী শামীম রেজা একজন মেধাবী শিক্ষার্থী। তার উদ্ভাবনের নেশা রয়েছে। ভবিষ্যতে শামীম আরও ভালো কিছু উদ্ভাবনে কাজ করতে পারবে বলে তিনি বিশ্বাস করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ধরনের আরো সংবাদ
© নাগরিক এক্সপ্রেস । সর্বসত্ব সংরক্ষিত। নাগরিক এক্সপ্রেস এর প্রকাশিত প্রচলিত কোনো সংবাদ তথ্য ছবি আলোকচিত্র রেখা চিত্র ভিডিও চিত্র অডিও কনটেস্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামত এর জন্য কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ণ লেখক এর
Theme Customized By Theme Park BD
error: Content is protected !!