1. admin@nagorikexpress.com : admin :
বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ০৩:০০ পূর্বাহ্ন
নোটিশ :
পরিচালনা পরিষদ: নাগরিক এক্সপ্রেস এর আইডি কার্ড এর মেয়াদ সম্পূর্ণ কোন সাংবাদিক নেই . সকলের আইডি কার্ডের মেয়াদ শেষ। দ্রুত আইডি কার্ড সংগ্রহ করুন জনপ্রিয় পত্রিকা নাগরিক এক্সপ্রেস এর পক্ষ থেকে সবাইকে পরিচালনা পরিষদের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন । বর্তমানে সারা বাংলাদেশে আইডি কার্ড ধারি আমাদের কোন সংবাদ কর্মী নেই যারা আছেন তাদের আইডি কার্ডের মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে তাই উক্ত সাংবাদিকগণ আমাদের প্রতিষ্ঠানে কর্মরত আছেন বলে বিবেচিত হবে না। যদি কারো আইডি কার্ডের প্রয়োজন হয় তাহলে খুব শীঘ্রই আমাদের সাথে যোগাযোগ করবেন। আপনি কি সাংবাদিক হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে চান? আপনি কি সমাজের সমস্ত অন্যায় অপরাধ দুর্নীতির বিরুদ্ধে লিখতে চান? তাহলে আজই আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন. নিরপেক্ষ সংবাদ এর সন্ধানে। আপনার এলাকায় ঘটে যাওয়া যেকোনো অনিয়ম দুর্নীতি আমাদের কাছে ইমেইলের মাধ্যমে পাঠাতে পারেন অথবা নিচে দেওয়া আমাদের নাম্বারে যোগাযোগ করতে পারেন সারাদেশে সাংবাদিক নিয়োগ চলছে সাংবাদিক হিসেবে নিজেকে গড়ে তুলতে আজি আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন.
শিরোনাম :
পাঠকবন্ধু মাদারীপুর জেলা শাখার পক্ষ থেকে ক্যান্সার আক্রান্ত রোগীকে আর্থিক সহযোগিতা দেয়া হয়েছে ভাঙ্গায় মানব কল্যান ফাউন্ডেশনের আয়োজনে ২ শতাধিক শিক্ষার্থীর মাঝে ছাতা ও পানির পট বিতরণ ভাঙ্গায় আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের নামে কুরুচিপূর্ণ বক্তব্যের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন ভাঙ্গায় প্রানী সম্পদ উন্নয়ন ও ডেইরী প্রকল্পের আওতায় খামারীদের মাঝে পোল্ট্রি খাদ্য বিতরণ ভাঙ্গায় প্রলোভন দেখিয়ে ৩ বছরের শিশুকে ধর্ষনের চেষ্টাঃ থানায় মামলা ভাঙ্গায় ১০ টাকার বিনিময়ে জমির পর্চা সরবরাহঃ স্মার্ট ভূমি সেবা সপ্তাহ ‘২০২৪এর উদ্বোধন ভাঙ্গায় জমি-জমার দ্বন্দের জেরে বৃদ্ধাকে কুপিয়ে আহত করার অভিযোগ ভাঙ্গায় ভূমিসেবা সপ্তাহ ২০২৪ উদযাপন উপলক্ষে সাংবাদিকদের সাথে মত বিনিময় ভাঙ্গায় ৪, শ জন প্রান্তীক কৃষকের মাঝে নারিকেল চারা বিতরণ ভাঙ্গায় মোমবাতির আগুনে বসত ঘর ভস্মীভূতঃ ক্ষতির পরিমাণ ৮ লাখ টাকা

নিষেধাজ্ঞা শেষে চাঁদপুর পদ্মা-মেঘনায় মাছ ধরতে নেমেছে জেলেরা

  • আপডেট সময় : বুধবার, ১ মে, ২০২৪
  • ৭৩ বার পঠিত

তুহিন ফয়েজ, চাঁদপুর পদ্মা মেঘনায় মার্চ-এপ্রিল দুই মাসের অভয়াশ্রম শেষে মাছ ধরতে নেমেছে জেলেরা। ইলিশের উৎপাদন বাড়াতে এবং জাটকা রক্ষায় জেলা টাস্কফোর্সের সম্মিলিত অভিযান জাটকা প্রতিরোধ অনেকাংশ সফল হয়েছে বলে জানিয়েছে মৎস্য বিভাগের। নিষেধাজ্ঞা শেষে ১ এপ্রিল মধ্যরাত থেকে আবারও মাছ ধরার জন্য জেলার প্রায় ৪৪ হাজার নিবন্ধিত জেলে নৌকা এবং জাল মেরামত করে এখন নদীতে।

চাঁদপুর, হাইমচর ও মতলব উত্তর ও মতলব দক্ষিণ উপজেলার বিভিন্ন এলাকার মেঘনা পাড়ের জেলে পল্লীতে দেখাগেছে জেলেদের ইলিশ ধরার প্রস্তুতি।

হাইমচর উপজেলার জেলেরা জানান বছরের দুটি সময় মাছ ধরা নিষিদ্ধ থাকে। তখন আমাদের অন্য কাজ করে সংসার চালাতে হয়। আবার যখন মাছ ধরা শুরু হয় এর আগ থেকেই ঋন করে বিভিন্নভাবে নৌকা মেরামত ও জালা ক্রয় করে নদীতে নামি। তবে ইলিশ পাওয়ার বিষয়টি আল্লাহর উপর। নদীতে নামলে অনেক সময় ইলিশ পাওয়া যায়, আবার অনেক সময় খালি হাতে ফিরতে হয়।

তারা বলেন,নিষেধাজ্ঞা দিলে আমরা মাছ ধরা থেকে বিরত থাকি। তবে সরকার থেকে যে সহায়তা দেয়া হয়, তা দিয়ে সংসার চলেনা। যে কারণে অন্য কাজ করে উপার্জন করি। এবছর ইটের ট্রলারে কাজ করেছি। সরকার জাটকা রক্ষায় যে অভিযান দেয়, তা আরো কঠোর এবং কারেন্টজালের ব্যবহার পুরোপুরি নিষিদ্ধ করা দরকার। তাহলে ইলিশ পাওয়ার সম্ভাবনা বাড়বে।

মতলব উত্তর উপজেলার ষাটনল, এখলাছপুর,আমিরাবাদ ও জহিরাবাদ গুরে দেখা গেছে নদীতে নামার জন্য জাল ও নৌকা মেরামতের কাজ করছেন জেলেরা । তারা বলেন, দুই মাস মাছ আহরণ থেকে বিরত থাকায় আমাদের সংসার অনেক কষ্টে চলেছে। কারণ আমরা মাছ ধরা ছাড়া অন্য কোন কাজ করতে পারি না। যে কারণে ইলিশ পাওয়ার আশা নিয়ে এখন আবার জাল মেরামত করে মাছ ধরার প্রস্তুতি নিচ্ছি।
তারা আরও বলেন, আমাদের প্রতিটি নৌকায় ১০ থেকে ১২ জন্য জেলে থাকে। ১২ জনের ১২ পরিবার। আমাদের মাছ পাওয়ার ওপর নির্ভর করে সংসার। মাছ পাওয়া গেলে সংসার ভাল চলে। না পাওয়া গেলে কষ্ট করেই চলতে হয়। অনেকে সন্তানদের নিয়ে কষ্টে দিনাতিপাত করেন।
হাইমচর উপজেলা জ্যেষ্ঠ মৎস্য কর্মকর্তা (অতিরিক্ত দায়িত্ব) মো. মাহবুবুর রশীদ জানান, জাটকার সবচাইতে বড় বিচরণ কেন্দ্র হাইমচর। এখানে কঠোর অভিযান হওয়ায় জেলেরা নদীতে নামতে পারেনি। বাহিরের জেলেদের প্রতিরোধ করা হয়েছে। এর সুফল এ অঞ্চলের জেলেরা পাবে।

সদর উপজেলা জ্যেষ্ঠ মৎস্য কর্মকর্তা মো. তানজিমুল ইসলাম জানান, অন্য বছরের তুলনায় এ বছর চাঁদপুরের অভয়াশ্রম এলাকার জেলেরা সচেতন ছিল। যে কারণে বাহিরের জেলেরা জাটকা নিধন করতে পারেনি। আমরা এখন জেলেদের বৈধ জাল দিয়ে মাছ ধরার জন্য উৎসাহ দিচ্ছি।
চাঁদপুর জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. গোলাম মেহেদী হাসান দুই মাসের জাটকা রক্ষার অভিযান সম্পর্কে বলেন, এ বছর ইলিশ সম্পদ উন্নয়ন ও ব্যবস্থাপনা প্রকল্পের আওতায় অভয়াশ্রম এলাকায় ১০টি স্পীডবোট দিয়ে অভিযান পরিচালনা করা হয়। আমাদের কর্মকর্তা-কর্মচারী, কোস্টগার্ড, নৌ পুলিশ এ বছর রমজান মাসেও দিনরাতে নদীতে অবস্থান করেছে। রমজান মাসজুড়ে নদীতে ছিল আমাদের কর্মকর্তা কর্মচারীরা।

তিনি আরও বলেন, এ বছর জেলা টাস্কফোর্সের কঠোর অবস্থান থাকায় জেলেরা নদীতে নেমেছে কম। তারপরেও যারা নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে নেমেছে তার মধ্যে প্রায় ৩ শতাধিক জেলেকে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে সাজা দিয়েছি। দুই মাসে প্রায় ৫০লাখ মিটার নিষিদ্ধ কারেন্ট অন্যান্য জাল, ৩ মেট্টিক টন জাটকা ও ৬০টি মাছ ধরার নৌকা জব্দ করা হয়েছে। আটক জেলেদের কাছ থেকে জরিমানা আদায় করা হয়েছে প্রায় ১০লাখ টাকা। জব্দকৃত নৌকাগুলো পরবর্তীতে নিলামে বিক্রি করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© নাগরিক এক্সপ্রেস । সর্বসত্ব সংরক্ষিত। নাগরিক এক্সপ্রেস এর প্রকাশিত প্রচলিত কোনো সংবাদ তথ্য ছবি আলোকচিত্র রেখা চিত্র ভিডিও চিত্র অডিও কনটেস্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামত এর জন্য কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ণ লেখক এর
Theme Customized By Shakil IT Park